৪১তম BCS প্রস্তুতি যেভাবে নিবেন

৪১তম BCS প্রস্তুতি যেভাবে নিবেন-
.
এখন পর্যন্ত পত্রপত্রিকা ও সংবাদ মাধ্যম মারফত যতটুকু জেনেছি ৪১ তম বিশেষ বিসিএস হবে শুধু শিক্ষা ক্যাডার নিয়োগের জন্য।
(সূত্র: ETV, ২৩ জুলাই, ২০১৮)
.
এই সার্কুলারে কয়েক হাজার শিক্ষা ক্যাডার নিয়োগ দিবে বলে জানা গেছে।
.
যেহেতু বিসিএস পরীক্ষাটি স্পেশাল হবে, তাহলে এর পরীক্ষাও হবে স্পেশাল সিস্টেমে মানে প্রিলি + ভাইভা (যদিও সবকিছু ডিপেন্ড করে PSC) উপর) যেমনটি আমরা দেখেছি ৩৯তম বিশেষ বিসিএসের ক্ষেত্রে। তবে এখানে ৪১তম সাথে ৩৯তম এর কিছুটা পার্থক্য রয়েছে। ৩৯তম বিসিএসে সাধারণ অংশে ১০০ নাম্বার + মেডিকেল সাইন্স পার্টে ১০০ নাম্বারে হয়েছি।
কিন্তু ৪১তম সেটা সম্ভবপর নয় বলে আমি মনে করি।
কারণ ৩৯তম মেডিকেল ডিপার্টমেন্ট ছিল দুটি ১ টি মেডিকেল সার্জন, আরেকটি ডেন্টাল সার্জন।
কিন্তু শিক্ষা ক্যাডারে সাবজেক্ট যেমন বেশি পরীক্ষার্থীও অনেক। তাই এতো টাইপের প্রশ্ন করা কঠিন।
এর আগে ২৬তম, ১৬তম, ১৪তম বিসিএস স্পেশাল হয়েছিল শুধু শিক্ষা ক্যাডারদের জন্য এবং সাবজেক্ট রিলেটেড সবাই আবেদন করতে পেরেছিলেন। যতুটুকু জানি, সেগুলোতে শুধু সাধারণ MCQ+ Viva হয়েছিল।
.
৩২তম বিসিএসও স্পেশাল হয়েছিল শিক্ষা ক্যাডার নিয়োগের জন্য। তবে সেটা ছিল শুধু কোটাধারীদের জন্য। তাই হয়তো বা সেখানে ১০০ নাম্বারের সাধারণ MCQ + রিটেন+ ভাইভা হয়েছিল।
*অর্থাৎ কোনো শিক্ষা ক্যাডারের কোনো স্পেশাল বিসিএস পরীক্ষায় MCQ এর জন্য নিজের সাবজেক্ট এর উপর আলাদাভাবে MCQ হয়নি। সসবার জন্য একই রকম সাধারণ MCQ তে পরীক্ষা হয়েছিল।
.
আবার এখানে কেউ কেউ মন খারাপ করতে পারেন, যাদের সাবজেক্ট শিক্ষা ক্যাডারে নেই, তারা তো ৪১তম বিসিএসে আবেদন করতে পারবেন না।
এখানে বলে রাখি, মন খারাপ করার বা চিন্তিত হওয়ার কিছু নেই। ৪১তম বিসিএস যদি শিক্ষা ক্যাডার এর জন্য স্পেশাল হয় তাহলে আশা করা যায় শীঘ্রই জেনারেল বিসিএস সার্কুলার হবে ৪১তম বিসিএস সার্কুলারের পর। যেমন, ৩৯তম ডাক্তারের জন্য স্পেশাল হওয়াতে এর কিছু দিন পরই ৪০তম সাধারণ সার্কুলার হলো।
তাই বলে পড়তে থাকুন। নিজেকে প্রস্তুত করুন পরীক্ষার জন্য। এবার সার্কুলার যখনই হোক বা পরীক্ষা যেভাবে হোক।
.
*বি. দ্র: ফেইসবুকে কেউ কেউ গুজব ছড়াচ্ছে ৪১তম যেহেতু শিক্ষা ক্যাডার নিবে তাই শিক্ষাগত যোগ্যতা বেশি লাগবে। মানে, আগের মতো অনার্স দিয়ে হবে না।
আমি বলবো, এসব গুজবে কান না দিয়ে পড়তে থাকুন। কারণ যেসব মহাজ্ঞানীরা এসব গুজব ছড়াচ্ছে, তারা কেউ হয়তো বিসিএস ক্যাডার হওয়া তো দূরে থাক বিসিএস প্রিলিও পাশ করতে পারে নি। তারা জানে না, পিএসসি চাইলে নিজের মনগড়া কিছু করতে পারে না। এটি একটি সাংবিধানিক প্রতিষ্ঠান। এটি সংবিধান ও আইন অনুযায়ী চলে। আগের সিস্টেম চাইলে বাদ দিতে পারে না। সেইজন্য নতুন আইন পাশ করতে হয়। অনেক জটিলতা আছে। মূল কথা হলো আবেদনের যোগ্যতা আগের মতোই থাকবে। মানে আনার্স বা ডিগ্রি+ মাস্টার্স। আগের শিক্ষা ক্যাডার নিয়োগের জন্য স্পেশাল বিসিএসের যোগ্যতাও এমন ছিল।
.
আপনারা শিক্ষিত মানুষ, ফেইসবুকে কেউ কিছু দিলে বা বললে আগে ভালোভাবে যাচাই করে দেখবেন যে তথ্য দিচ্ছে, সে আসলে কতটুকু বিশ্বাস্ত কিংবা সেই ব্যক্তি যে বিষয়ে তথ্য দিচ্ছে সে কতটুকু জানে সেই বিষয়ে।